সংস্করণ: ২.০১

স্বত্ত্ব ২০১৪ - ২০১৭ কালার টকিঙ লিমিটেড

business-idea-growth.jpg

অভ্যাস করান, ব্যবসা আপনা-আপনিই হবে

নতুন নতুন উদ্দোক্তাদের প্রেরণা দিতে লেখাটা লেখা হয়েছে। মজার ছলে কিছু ব্যসিক ব্যাপার মাথায় ঢুকিয়ে দেওয়ার ব্যবস্থা করা। কিছু তথ্য এবং নিজস্ব যুক্তিনির্ভর প্রাঞ্জল লেখা, লিখার চেষ্টা করেছি।

ব্রিটিশরা এই উপমহাদেশ শাসন করেছে প্রায় ২০০ বছর। তারা আমাদের অনেক কিছুই শিখিয়ে গিয়েছে (I beg, Sorry etc)। আবার অনেক কিছুই অমিমাংসিত (কাষ্মীর) রেখে গিয়েছে ইচ্ছা করেই, যাতে আজীবনই ওদেরকে স্মরণ করতে হয়।

তবে ওদেরকে আমি একটা বিষয়ে স্যালুট করি, যেই পলিসিটা আমার খুব বেশি পছন্দের। পলিসিটা হলো এমন, 'অভ্যাস করান ব্যবসা আপনা-আপনিই হবে'। ব্যাপারটা কি বোধগম্য হচ্ছে না? আচ্ছা বুঝিয়ে বলছি। তার আগে কিছু আলোচনা করে নিচ্ছি।

ব্রিটিশরা ভারত উপমহাদেশে আসে মূলত ব্যবসা-বানিজ্য করতে। কারণ, তৎকালীন সময়ে ভারত উপমহাদেশ ছিল ব্যবসা-বানিজ্যের তীর্থভূমি। শুধু যে ব্রিটিশেরাই এসেছিল তা কিন্তু নয়। পর্তুগিজ, ওলন্দাজ, তুর্কিরাও এসেছিল এই উপমহাদেশে। উপমহাদেশে সিগারেট বা বিড়ির প্রচলন বা বাজারজাতকরণ হয় ব্রিটিশ আমলেই। প্রচলনটা কিভাবে হল? পলিসি টা কি ছিল? এটা জানতে বা বুঝতে পারলে আমাদের চোখ চরাগগাছ এ উঠবে। একটা নতুন প্রোডাক্ট মার্কেটে নামাতে হলে একটা স্ট্রং মার্কেট পলিসি প্রয়োজন। ওদের পলিসিটা ছিল চমকে যাওয়ার মত। ওরা যখন সিদ্ধান্ত নিল যে বিড়ি বা সিগারেট বাজারজাতকরণ করবে, তখন ওরা একটা বুদ্ধি আঁটলো।

প্রথমে অভ্যাস করাব তারপর ব্যবসা করব। যেই কথা সেই কাজ। তারা বিড়ি বা সিগারেট মানুষকে ফ্রিতে খাওয়ানো শুরু করলো। মানুষকে ডেকে ডেকে খাওয়াত। মানুষ ও এটার ভবিষ্যৎ না জেনেই ফ্রিতেই খেতে লাগলো। যেহেতু বাংঙ্গালি, ফ্রি পাইলে আলকাতরাও খায়। এরপর যা হবার তাই হইল। মানুষ বিড়ির প্রতি এ্যডিক্টেট হয়ে গেল। এটাকে অভ্যাসে পরিণত করতে থাকল।

কিছুদিন পর হঠাৎ ফ্রি বিড়ি বিতরণ করা বন্ধ হয়ে গেল কোন এক সমস্যা দেখিয়ে। এখন মানুষ কি করবে! মানুষ তো বিড়ির প্রতি এ্যডিক্টেট। কোনমতেই বিড়ি বা সিগারেট এর নেশা ভুলতে পারছে না। এভাবে কিছুদিন কাটার পর, ব্রিটিশরা মানুষের দু:খ সইতে না পেরে বিড়ি বা সিগারেট বাজারজাতকরণ বা বিক্রি শুরু করলো।

মানুষ তো বেজায় খুশি বিড়ি পেয়ে। হুর হুর করে ব্যবসায় উন্নতি হতে থাকল, কারণ মানুষ ও হুর হুর করে সিগারেট কিনতে থাকল। একই পলিসি ছিল চা এর ব্যাপারে। আসলেই ব্রিটিশ বুদ্ধি প্রশংসার দাবিদার। আমিও ভাবছি এই টাইপের একটা বিজনেস করব। স্পা সেন্টার খুলব। বিজনেস পলিসি ব্রিটিশদের মতই রাখব। কোম্পানি দেওয়ার পর প্রথমে রেজিস্ট্রেশন করবো ভাগ্যবান ৫০ জন ক্লাইন্ট এর। যারা কিনা ১ মাস ফ্রি স্পা সেবা পাবেন সপ্তাহে ৪ দিন। এভাবে তাদের অভ্যাস তৈরি করাব, স্পার উপর ডিপেনডেন্ট করব।

১ মাস পর চার্জ যুক্ত করব ধাপে ধাপে। এই ৫০ জনের মধ্যে মিনিমাম ৩০ জনই আমার বান্ধা কাস্টমার হয়ে যাবে এবং আমার ব্যবসা ও উত্তর উত্তর বৃদ্ধি পাবে। কারণ স্পাও একধরণের খারাপ এবং চিরস্থায়ী অভ্যাস।

ব্যবসা করবেন? সর্বপ্রথম আপনার প্রোডাক্ট এর মার্কেট ক্রিয়েট করুন। মানুষকে অভস্থ করুন আপনার প্রোডাক্টে। ব্যবসা কিন্তু আপনা-আপনিই হবে।
এখানে প্রকাশিত প্রতিটি লেখার স্বত্ত্ব ও দায় লেখক কর্তৃক সংরক্ষিত। আমাদের সম্পাদনা পরিষদ প্রতিনিয়ত চেষ্টা করে এখানে যেন নির্ভুল, মৌলিক এবং গ্রহণযোগ্য বিষয়াদি প্রকাশিত হয়। তারপরও সার্বিক চর্চার উন্নয়নে আপনাদের সহযোগীতা একান্ত কাম্য। যদি কোনো নকল লেখা দেখে থাকেন অথবা কোনো বিষয় আপনার কাছে অগ্রহণযোগ্য মনে হয়ে থাকে, অনুগ্রহ করে আমাদের কাছে বিস্তারিত লিখুন।

Business, Idea, Planning, British, Strategy, Free, Practice, smoke