সংস্করণ: ২.০১

স্বত্ত্ব ২০১৪ - ২০১৭ কালার টকিঙ লিমিটেড

DSC_0471.jpg

সময়ের চাহিদা এগ্রিকালচারাল ইঞ্জিনিয়ারিং পড়তে চাইলে

বাংলাদেশের সাধারণ মানুষের অর্থনৈতিক মুক্তি আনয়ন এবং খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণতা অর্জনের লক্ষ্যে কৃষি সম্পর্কিত যাবতীয় শাখাসমুহের পাশাপাশি কৃষিতে আধুনিক প্রকৌশল প্রযুক্তি একান্ত অপরিহার্য।

বাংলাদেশের সাধারণ মানুষের অর্থনৈতিক মুক্তি আনয়ন এবং খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণতা অর্জনের লক্ষ্যে কৃষি সম্পর্কিত যাবতীয় শাখাসমুহের পাশাপাশি কৃষিতে আধুনিক প্রকৌশল প্রযুক্তি একান্ত অপরিহার্য। এটি উপলব্ধি করে বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে ১৯৬৪সালে এগ্রিকালচারাল ইঞ্জিনিয়ারিং এর যাত্রা শুরু হয়।

এর সিলেবাস ফিজিক্যাল, বায়োলজীক্যাল ও সোস্যাল সাইন্স এর সম্মিলন যা সিভিল, ওয়াটার রিসোর্স, মেক্যানিক্যাল, ইলেকট্রিক্যাল এন্ড এনভাইরোনমেন্টাল ইঞ্জিনিয়ারিং কে সংযুক্ত করে। এর মুল বিষয়গুলো হল ফার্ম মেশিনারি, ইরিগেশন এন্ড ওয়াটার ম্যানেজমেন্ট, ল্যান্ড ড্রেনেজ এন্ড রিক্লেমেশান, সারফেস এন্ড গ্রাউন্ড ওয়াটার রিসোর্স, ইন্টিগ্রেটেড ওয়াটার রিসোর্স ম্যানেজমেন্ট, ক্লাইমেট এন্ড এগ্রিকালচার, পোস্ট হারভেস্ট টেকনোলজি, রিনিউএবল এনার্জি এন্ড বায়োরিসোর্স, সিমুলেশান এন্ড মডেলিং, লো -কস্ট হাউজিং, ফার্ম এনভায়রোনমেন্ট এন্ড স্ট্রাকচার, স্টোরেজ ফ্যাসিলিটিস এন্ড কম্পিউটার প্রোগ্রামিং।

কোথায় পড়বেন:
তিনটি বিশ্ববিদ্যালয়ে এই বিষয়ে পড়ানো হয়:
১. বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় (বাকৃবি) তে ১৯৬৪সাল থেকে পড়াশোনা করে অসংখ্য ছাত্র-ছাত্রী তাদের কর্মক্ষেত্রে প্রবেশ করে চলেছে। বর্তমানে প্রতিবছর বি.এস.সি কোর্সে ১০০ জন করে শিক্ষার্থী পড়াশোনা করছে। বাকৃবিতে এম.এস.সি তে ৩টি ডিপার্টমেন্টের আওতায় এই উচ্চশিক্ষার সুযোগ রয়েছে। সেগুলো হল:

  • ইরিগেশন এন্ড ওয়াটার ম্যানেজমেন্ট
  • ফার্ম পাওয়ার এন্ড মেশিনারি
  • ফার্ম স্ট্রাকচার

এ পযর্ন্ত বাকৃবি থেকে এগ্রিকালচারাল ইঞ্জিনিয়ারিং তে অধ্যয়ন করা ছাত্র-ছাত্রীর একটি অনুমিত তালিকা দেয়া হল:

  • বি.এস.সি -২০০০ (+)
  • এম.এস.সি - ৬৫০(+)
  • পি.এইচ.ডি - ২০(+)

২. হাজী মোহাম্মদ দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়(হাবিপ্রবি)এ ইঞ্জিনিয়ারিং ফ্যাকাল্টি'র আওতায় ২০০৯ সাল থেকে বি.এস.সি ইন এগ্রিকালচারাল ইঞ্জিনিয়ারিং এ শিক্ষাথীরা পড়াশোনা করে আসছে। বতর্মানে প্রতিবছর ৬০ জন ছাত্র-ছাত্রী এই বিষয়ে অধ্যয়ন করছে। এ পযর্ন্ত ১ম ব্যাচ এর ১৮ জন শিক্ষার্থী সফলতার সাথে পাশ করে উচ্চতর শিক্ষায় মনোনিবেশ করেছে।

আগামী ২০১৫ সালের জানুয়ারি-জুন সেশন থেকে দুটি বিষয়ে এম.এস.সি প্রোগ্রাম চালু হবে:

  • ইরিগেশন এন্ড ওয়াটার ম্যানেজমেন্ট
  • ফার্ম পাওয়ার এন্ড মেশিনারি

৩. সিলেট কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় (সিকৃবি) তে ২০১২ সাল থেকে এগ্রিকালচারাল ইঞ্জিনিয়ারিং এ বি.এস.সি কোর্সে প্রতিবছর ৬০ জন করে ভর্তি হচ্ছে।

বাংলাদেশ প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (বুয়েট) এ এম.এস.সি করার যথেষ্ট সুযোগ রয়েছে। এছাড়া শেখ মুজিবুর রহমান কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় এ এগ্রিকালচারাল ইঞ্জিনিয়ারিং ডিপার্টমেন্ট এর আওতায় গবেষণা কর্ম চলছে এবং ভবিষ্যতে এখানে আরও প্রোগ্রাম চালু হবে।

ইঞ্জিনিয়ার হিসেবে আপনি:
সারাদেশের ইঞ্জিনিয়ারদের নিবন্ধন ও তাদের সব ধরণের কার্যক্রম পরিচালনা করে ইঞ্জিনিয়ার'স ইন্সটিটিউশন, বাংলাদেশ (আই.ই.বি)। এর অনুমোদিতরা শুধু নিজেকে একজন ইঞ্জিনিয়ার হিসেবে দাবি করতে পারে।

আই.ই.বি এর মোট ৭ টি ডিভিশন বা বিভাগ রয়েছে। সেগুলো হল:

  • সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং
  • মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং
  • ইলেকট্রিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং
  • কেমিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং
  • এগ্রিকালচারাল ইঞ্জিনিয়ারিং
  • কম্পিউটার ইঞ্জিনিয়ারিং
  • টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিং

এর মধ্যে একটি অন্যতম বিভাগ হল এগ্রিকালচারাল ইঞ্জিনিয়ারিং যা ১৯৯৪ সাল হতে আই.ই.বি তে একটি স্বতন্ত্র বিভাগ হিসেবে তার কর্মকান্ড পরিচালনা করে আসছে।

বিদেশে উচ্চশিক্ষা:
বিদেশে উচ্চশিক্ষার জন্য এগ্রিকালচারাল ইঞ্জিনিয়াররা অনেক সুযোগ পেয়ে থাকেন। এপ্লাইড সায়েন্স সম্পর্কিত বিদেশে এমন কোনো বিশ্ববিদ্যালয় নেই এই বিষয়ে পড়ানো হয় না। বতর্মানে প্রচুর শিক্ষাথী বেলজিয়াম, সুইডেন, ইংল্যান্ড, আমেরিকা, কানাডা, অস্ট্রেলিয়া, চায়না, জাপান, দক্ষিণ কোরিয়া, মালেয়শিয়া, ইন্ডিয়া ও বিভিন্ন দেশে উচ্চশিক্ষা নিচ্ছে। তাছাড়া একজন ইঞ্জিনিয়ার হিসেবে সায়েন্স এর অন্য বিষয়েও প্রচুর পড়াশোনার ও গবেষণার সুযোগ রয়েছে।

বাংলাদেশে কর্মক্ষেত্র :

  • বাকৃবি, হাবিপ্রবি, সিকৃবি এবং অনান্য কৃষি, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (শিক্ষকতা)
  • বাংলাদেশ কৃষি উন্নয়ন কর্পোরেশন (বিএডিসি)
  • বরেন্দ্র বহুমূখী উন্নয়ন কতৃপক্ষ (বিএমএ)
  • কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর (ডিএই)
  • বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউট (বারি)
  • বাংলাদেশ ধান গবেষণা ইনস্টিটিউট (বিরি)
  • বাংলাদেশ গম গবেষণা ইনস্টিটিউট
  • বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অফ নিউক্লিয়ার এগ্রিকালচার (বিনা)
  • বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা কাউন্সিল
  • পল্লী বিদ্যুতায়ন বোর্ড
  • বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ড
  • বাংলাদেশ পল্লী উন্নয়ন একাডেমি (বার্ড)
  • বাংলাদেশ ইক্ষু গবেষণা ইনস্টিটিউট
  • বাংলাদেশ সুগার এন্ড ফুড ইনডাস্ট্রিস কর্পোরেশন
  • রুরাল ডেভেলপমেন্ট একাডেমি (আর.ডি.এ)
  • নদী গবেষণা ইনস্টিটিউট
  • ওয়াটার রিসোর্সেস প্লানিং অরগানাইজেশন
  • পল্লী বিদ্যুত সমিতি
  • টেকনিক্যাল স্কুল অ্যান্ড কলেজ
  • টেকনিক্যাল এডুকেশন বোর্ড
  • পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট
  • টেকনিক্যাল এডুকেশন ডিরেক্টরেট
  • বিভিন্ন সরকারি ও বে-সরকারি ব্যাংক
  • বে-সরকারি প্রতিষ্ঠান (ব্রাক,প্রোশিকা,আর.ডি.আর.এস)
  • প্রাইভেট এগ্রো-বিজনেস ইনস্টিটিউট
  • এগ্রো-ইনডাস্ট্রিস (এসিআই মটরস, প্রাণ ও অনান্য)
  • বিভিন্ন ইঞ্জিনিয়ারিং ওয়ার্কশপ
শীঘ্রই বাংলাদেশ সরকারি কর্ম কমিশন (বিপিএসসি) এ টেকনিক্যাল ক্যাডার -এ কৃষি প্রকৌশল অর্ন্তভুক্ত হবে ও প্রতিটি জেলায় একজন করে কৃষি প্রকৌশলী নিয়োগ দেয়া হবে এবং ক্রমান্বেয়ে তা উপজেলায় প্রসারিত হবে।
এখানে প্রকাশিত প্রতিটি লেখার স্বত্ত্ব ও দায় লেখক কর্তৃক সংরক্ষিত। আমাদের সম্পাদনা পরিষদ প্রতিনিয়ত চেষ্টা করে এখানে যেন নির্ভুল, মৌলিক এবং গ্রহণযোগ্য বিষয়াদি প্রকাশিত হয়। তারপরও সার্বিক চর্চার উন্নয়নে আপনাদের সহযোগীতা একান্ত কাম্য। যদি কোনো নকল লেখা দেখে থাকেন অথবা কোনো বিষয় আপনার কাছে অগ্রহণযোগ্য মনে হয়ে থাকে, অনুগ্রহ করে আমাদের কাছে বিস্তারিত লিখুন।

Agricultural, Engineering, education, Higher, University, Guidances, career, life