সংস্করণ: ২.০১

স্বত্ত্ব ২০১৪ - ২০১৭ কালার টকিঙ লিমিটেড

eyestrain.jpg

জেনে রাখুন কম্পিউটার জনিত চক্ষু সমস্যা প্রতিরোধে করনীয়

আমাদের অনেকেই জানি না দীর্ঘ সময় কম্পিউটারে কাজ চোখের ক্ষতি সাধন করে ।একটু সচেতন হলেই আমরা এ ক্ষতি প্রতিরোধ করতে পারি ।

বতর্মান যুগ কম্পিউটারের যুগ। এ যুগে আমরা কম্পিউটার ছাড়া অনেকটাই অচল। উপার্জন থেকে শুরু করে দৈনন্দিন জীবনের অনেক কাজ কম্পিউটারের মাধ্যমে করে থাকি। আমাদের অনেকেই জানি না দীর্ঘ সময় কম্পিউটারে কাজ চোখের ক্ষতি সাধন করে।একটু সচেতন হলেই আমরা এ ক্ষতি প্রতিরোধ করতে পারি। কম্পিউটার জনিত চক্ষু সমস্যা  এবং প্রতিরোধে করনীয়ঃ 

 কম্পিউটার জনিত চক্ষু সমস্যা-

 ১.দৃষ্টি স্বল্পতা

২.চোখ জ্বালা-পোড়া করা

৩.চোখ ব্যথা

৪.মাথা ব্যথা

৫.ঘাড় ব্যথা

৬.চোখে আলো অসহ্য লাগা  

এছাড়া অন্যান্য সমস্যা দেখা দিতে পারে।

সমস্যা প্রতিরোধে করনীয় -

১. মনিটর ব্যবহারের সময় চোখের লেভেল মনিটর হতে ৪ ইঞ্চি থেকে ৮ ইঞ্চি নিচে এবং ২০ ইঞ্চি থেকে ২৮ ইঞ্চি দূরে থাকতে হবে।

২.মনিটরের উজ্জ্বলতা এবং কনট্র্যাস্ট লেভেল চোখের সহনীয় পযার্য়ে রাখতে হবে।

৩.কম্পিউটার স্ক্রিনের ব্যাকগ্রাউন্ডের রং চোখের পক্ষে আরামদায়ক হতে হবে। 

৪. কম্পিউটারে কাজ করার সময় ঘন ঘন চোখের পলক ফেলা একটা ভালো উপায়। স্বাভাবিক অবস্থায় চোখের পলক  প্রতি মিনিটে ১২-১৪ বার।

৫. ঘরের আলো এমনভাবে রাখতে হবে যাতে সেই আলো সরাসরি মনিটর বা চোখের ওপর এসে প্রতিফলিত না হয়।  অথাৎ কম্পিউটার লাইটের বিপরীত স্থানে স্থাপন করা উচিত।

৬.কম্পিউটার ব্যবহার করার সময়, প্রতি ২০ মিনিট অন্তর ২০ ফুট দূরের কোন জিনিসের দিকে ২০ সেকেন্ড তাকিয়ে থাকতে হবে। প্রতি ৩০ মিনিট অন্তর ২০ সেকেন্ডের জন্য চোখ বন্ধ রাখা উচিত। এই অনুশীলন কম্পিউটারের সামনে দীর্ঘ সময়  কাজ করার এবং চোখের আরামদায়ক অনুভূতি বজায় রাখতে সহায়ক হয়।

৭.কি-বোর্ড হাতে রপ্ত হলে ভালো।  রপ্ত না হলে কি-বোর্ডকে মনিটরের যতটা সম্ভব কাছে রাখতে হবে, যাতে মনিটর থেকে কি-বোর্ডে চোখের মুভমেন্ট কম হয়।

৮.কম্পিউটারে যারা কাজ করে থাকেন তাদের জন্য তৈরি করা হয়েছে  কম্পিউটার গ্লাস। এটি চোখে অতিরিক্ত উজ্জ্বল আলো, প্রতিফলন পড়া থেকে রক্ষা করে আর আপনার চোখ রাখে শীথিল। সুতরাং চোখের সমস্যা প্রতিরোধ করতে কম্পিউটার গ্লাস ব্যবহার করা উচিত।

৯.কম্পিউটার মনিটর লম্ব বরাবর না রেখে কিছুটা  সামনে পিছনে এঙ্গেল করে রাখা উচিত। 

১০.কম্পিউটারে কাজ করার সময় একটানা কাজ করা কখনই ভালো নয়। তাই কিছু সময় পর পর বিরতি নেয়া উচিত। এ সময় কম্পিউটার থেকে দূরে গিয়ে, চা খেয়ে, গল্প করে,  মুখে ও চোখে পানির ঝাঁপটা দিয়ে, আবার কখনও চোখ বন্ধ করে বিশ্রাম নেয়া যেতে পারে।

উপরোক্ত পদ্ধতি অনুসরন করে আমরা কম্পিউটার জনিত চক্ষু সমস্যা অধিকাংশই প্রতিরোধ করতে পারি।


এখানে প্রকাশিত প্রতিটি লেখার স্বত্ত্ব ও দায় লেখক কর্তৃক সংরক্ষিত। আমাদের সম্পাদনা পরিষদ প্রতিনিয়ত চেষ্টা করে এখানে যেন নির্ভুল, মৌলিক এবং গ্রহণযোগ্য বিষয়াদি প্রকাশিত হয়। তারপরও সার্বিক চর্চার উন্নয়নে আপনাদের সহযোগীতা একান্ত কাম্য। যদি কোনো নকল লেখা দেখে থাকেন অথবা কোনো বিষয় আপনার কাছে অগ্রহণযোগ্য মনে হয়ে থাকে, অনুগ্রহ করে আমাদের কাছে বিস্তারিত লিখুন।

কম্পিউটার, চোখের-সমস্যা, করনীয়, দূরত্ব